ঢাকা ০৯:০৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::

সাজার মেয়াদ শেষ হলেও ভারতীয় পাঁচ নাগরিক বন্দি রাজশাহী কারাগারে!

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৫:২১:২০ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ অগাস্ট ২০২২ ১৩ বার পড়া হয়েছে

রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগার

আজকের জার্নাল অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

সাজার মেয়াদ শেষ হলেও ভারতীয় পাঁচ নাগরিক বন্দি রাজশাহী কারাগারে!

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী:
সাজার মেয়াদ শেষ হলেও ভারতীয় পাঁচ নাগরিক বন্দি রাজশাহী কারাগারে! রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে সাজা মেয়াদ শেষ হওয়ার পরেও জটিলতার কারণে বন্দি জীবন কাটাচ্ছেন ভারতীয় পাঁচ নাগরিক। বাংলাদেশে অবৈধ অনুপ্রবেশ ও মাদক চোরাচালানের অভিযোগে তাদের সাজা হয়। সাজার মেয়াদ শেষ হলেও জটিলতার কারণে মুক্তি মিলছে না ভারতীয় পাঁচ নাগরিকের।

ভারতীয় কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে বিষয়টি জানানো হলেও তাদের থেকে আসামি পুশব্যাকের বিষয়ে ক্লিয়ারেন্স না পাওয়ায় মেয়াদ শেষেও বন্দি থাকতে হচ্ছে ওই পাঁচ ভারতীয় নাগরিকদের। কারা কর্তৃপক্ষ জটিলতার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
তবে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার সুব্রত কুমার বালা বলেন, তাদের হস্তান্তর বিষয়ে প্রক্রিয়া চলমান আছে। এরই মধ্যে একজনের ব্যাপারে অনুমতি মিলেছে।

শিগগিরই তাকে কারাগার থেকে মুক্তি দেওয়া সম্ভব হবে। প্রক্রিয়া শেষে অন্যরাও মুক্তি পাবেন।
এদিকে, সারাদেশের বর্ডার লাইনে অবস্থিত কারাগারে প্রায় তিন শতাধিক ভারতীয় বন্দি রয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বন্দির বিষয়টি ভারতীয় দূতাবাসকে জানালেও কোনো সমাধান মেলেনি। তবে কারা কর্তৃপক্ষ দূতাবাসসহ স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সঙ্গে নিয়মিত চিঠি চালাচালি করছে। ইতোমধ্যে একজনের ব্যাপারে মুক্তির অনুমতি মিলেছে। যে কোনো দিন তাকে প্রক্রিয়া মেনে মুক্তি দেওয়া হবে।
এর আগে অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে ২০১৯ সালের ৭ সেপ্টেম্বর ভারতের নাগরিক সাবরুদ্দিনকে তিন মাসের কারাদণ্ড দিয়েছিল আদালত। এরপর তাকে সাজা ভোগের জন্য রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়। তার সাজার মেয়াদ শেষ হয় একই বছরের ৮ ডিসেম্বর। এছাড়াও একই অপরাধে ঈসমাইল শেখ নামের এক ভারতীয়কে এক মাস ১৫ দিনের কারাদণ্ড দেওয়া হয় ২০১৯ এর ১১ আগস্ট।
মাদক ও চোরাচালান মামলায় সেন্টু শেখকে ৩৩ বছর কারাদণ্ড দেয়া হয় ১৯৯৫ সালের ৮ ডিসেম্বর। তার সাজাও মেয়াদও শেষ হয় ২০২১ সালের ১৬ ডিসেম্বর। কিন্তু জটিলতা থাকায় মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও বছরের পর বছর তারা বন্দিদশা থেকে মুক্ত হতে পারছেন না। তারা এখনও রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রত্যাবাসন প্রত্যাশী হিসেবে বন্দি জীবন কাটাচ্ছেন।

রাজশাহী জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো. আব্দুল জলিল জানান, যারা ভারতীয় বন্দি রয়েছেন তাদের নাম ঠিকানা যেগুলো আমাদের দিয়েছে সেটি মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। সেখান থেকে ভারতীয় দূতাবাসের মাধ্যমে ওই দেশের সরকারের কাছে পাঠানো হয়েছে। এখন তাদের সঠিক পরিচয় বা আদৌ তারা ওই দেশের নাগরিক কিনা তা যতদিন না সঠিক তথ্য দেয় ততদিন পর্যন্ত তাদের এখানে রাখতে হচ্ছে। প্রক্রিয়াটি শেষ হলে নিয়ম মেনেই তাদের হস্তান্তর করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

সাজার মেয়াদ শেষ হলেও ভারতীয় পাঁচ নাগরিক বন্দি রাজশাহী কারাগারে!

আপডেট সময় : ০৫:২১:২০ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ অগাস্ট ২০২২

সাজার মেয়াদ শেষ হলেও ভারতীয় পাঁচ নাগরিক বন্দি রাজশাহী কারাগারে!

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী:
সাজার মেয়াদ শেষ হলেও ভারতীয় পাঁচ নাগরিক বন্দি রাজশাহী কারাগারে! রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে সাজা মেয়াদ শেষ হওয়ার পরেও জটিলতার কারণে বন্দি জীবন কাটাচ্ছেন ভারতীয় পাঁচ নাগরিক। বাংলাদেশে অবৈধ অনুপ্রবেশ ও মাদক চোরাচালানের অভিযোগে তাদের সাজা হয়। সাজার মেয়াদ শেষ হলেও জটিলতার কারণে মুক্তি মিলছে না ভারতীয় পাঁচ নাগরিকের।

ভারতীয় কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে বিষয়টি জানানো হলেও তাদের থেকে আসামি পুশব্যাকের বিষয়ে ক্লিয়ারেন্স না পাওয়ায় মেয়াদ শেষেও বন্দি থাকতে হচ্ছে ওই পাঁচ ভারতীয় নাগরিকদের। কারা কর্তৃপক্ষ জটিলতার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
তবে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার সুব্রত কুমার বালা বলেন, তাদের হস্তান্তর বিষয়ে প্রক্রিয়া চলমান আছে। এরই মধ্যে একজনের ব্যাপারে অনুমতি মিলেছে।

শিগগিরই তাকে কারাগার থেকে মুক্তি দেওয়া সম্ভব হবে। প্রক্রিয়া শেষে অন্যরাও মুক্তি পাবেন।
এদিকে, সারাদেশের বর্ডার লাইনে অবস্থিত কারাগারে প্রায় তিন শতাধিক ভারতীয় বন্দি রয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বন্দির বিষয়টি ভারতীয় দূতাবাসকে জানালেও কোনো সমাধান মেলেনি। তবে কারা কর্তৃপক্ষ দূতাবাসসহ স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সঙ্গে নিয়মিত চিঠি চালাচালি করছে। ইতোমধ্যে একজনের ব্যাপারে মুক্তির অনুমতি মিলেছে। যে কোনো দিন তাকে প্রক্রিয়া মেনে মুক্তি দেওয়া হবে।
এর আগে অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে ২০১৯ সালের ৭ সেপ্টেম্বর ভারতের নাগরিক সাবরুদ্দিনকে তিন মাসের কারাদণ্ড দিয়েছিল আদালত। এরপর তাকে সাজা ভোগের জন্য রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়। তার সাজার মেয়াদ শেষ হয় একই বছরের ৮ ডিসেম্বর। এছাড়াও একই অপরাধে ঈসমাইল শেখ নামের এক ভারতীয়কে এক মাস ১৫ দিনের কারাদণ্ড দেওয়া হয় ২০১৯ এর ১১ আগস্ট।
মাদক ও চোরাচালান মামলায় সেন্টু শেখকে ৩৩ বছর কারাদণ্ড দেয়া হয় ১৯৯৫ সালের ৮ ডিসেম্বর। তার সাজাও মেয়াদও শেষ হয় ২০২১ সালের ১৬ ডিসেম্বর। কিন্তু জটিলতা থাকায় মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও বছরের পর বছর তারা বন্দিদশা থেকে মুক্ত হতে পারছেন না। তারা এখনও রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রত্যাবাসন প্রত্যাশী হিসেবে বন্দি জীবন কাটাচ্ছেন।

রাজশাহী জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো. আব্দুল জলিল জানান, যারা ভারতীয় বন্দি রয়েছেন তাদের নাম ঠিকানা যেগুলো আমাদের দিয়েছে সেটি মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। সেখান থেকে ভারতীয় দূতাবাসের মাধ্যমে ওই দেশের সরকারের কাছে পাঠানো হয়েছে। এখন তাদের সঠিক পরিচয় বা আদৌ তারা ওই দেশের নাগরিক কিনা তা যতদিন না সঠিক তথ্য দেয় ততদিন পর্যন্ত তাদের এখানে রাখতে হচ্ছে। প্রক্রিয়াটি শেষ হলে নিয়ম মেনেই তাদের হস্তান্তর করা হবে।