ঢাকা ০৫:১৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::

মহাদেবপুরে আদিবাসী নারী শ্রমিকদের বেতন বৈষম্য

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০২:২৩:২৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ নভেম্বর ২০২১ ১২৩ বার পড়া হয়েছে
আজকের জার্নাল অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

কাজী সামছুজ্জোহা মিলন, মহাদেবপুর (নওগাঁ) প্রতিনিধিঃ
উত্তরাঞ্চলের শস্যভান্ডার খ্যাত নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলায় এখন রোপা আমন ধান কাটার ভরা মৌসুম। কাস্তের কচাকচ শব্দে মুখর মাঠের পর মাঠ। কোথাও ধান কাটছেন জমির মালিক, বাপ বেটা, নাতি পুতি, স্বামী স্ত্রী। কোথাও স্থানীয় কৃষি শ্রমিক। আবার কোথাও চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে আসা মৌসুমী শ্রমিকের দল।
সমতলের অবহেলিত আদিবাসী সাওতাল সম্প্রদায়ের মেয়েরা আদি থেকেই কৃষি কাজ করে আসছেন। হররোজ হাটুঅব্দি শাড়ি পড়ে দলবেঁধে খেতের আইল বেয়ে হেঁটে চলা, পুরুষ শ্রমিকদের সাথে ধান কাটা, আঁটি বাঁধা, মাথায় করে বোঝা বওয়া, মাড়াই করা সব কাজই করেন তারা। একজন পুরুষের সমান তো বটেই, অনেক ক্ষেত্রে পুরুষের চেয়ে তাড়াতাড়ি বেশি কাজ করেন। কিন্তু আদি থেকেই মজুরি বঞ্চনার শিকার হয়েছেন কৃষিতে অবদান রাখা এই নারী শ্রমিকেরা।
চোখের সামনেই একই সমান কাজ করেও বেশি টাকা নিয়ে যাচ্ছেন পুরুষেরা। এটা দেখেও কোন প্রতিবাদ করতে পারেননা তারা।
ইদানিং অনেক এনজিও কাজ করছেন আদিবাসীদের উন্নয়নে। কিন্তু তাদের এ বৈষম্যের অবসানে এগিয়ে আসেনি কেউ।
বুধবার (১৭ নভেম্বর) বিকেলে উপজেলার খাজুর ইউনিয়নের দেবীপুর গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, মহাদেবপুর-সরাইগাছী পাকা সড়কের পাশেই খেতে ধান কাটায় ব্যস্ত একদল নারী-পুরুষ। কাছে যেতেই বেশভূষায় চেনা গেল আদিবাসী সাওতাল নারীদের।
জানতে চাইলে একে একে তারা তাদের নাম বললেন তিলতি কর্মকার, গিতা, মিনতি, রামন্তি ও লাকি। দেবীপুর গ্রামেই বাড়ি তাদের। সকাল থেকেই ধান কাটার কাজ করছেন তারা। সারাদিনের কাজের জন্য প্রত্যেকে মজুরি পান রোজ তিনশথ টাকা। তাদের সাথে কাজ করছিলেন কয়েকজন পুরুষ শ্রমিক। রেজাউল, শরিফুল, মোস্তফা, সাগর ও হাসান।
আদিবাসী নারীদের হাত তাদের চেয়ে জোরে চলে, জানালেন রেজাউল।
কিন্তু তারা একই সময় কাজ করে মজুরি পান রোজ চারশথ টাকা। কেন? মেয়ে মানুষ, তাই।
শ্রমিকদের সাথে নিজেও ধান কাটছিলেন জমির মালিক ওই গ্রামের আল মামুন। জানালেন, তিন বিঘা জমিতে স্বর্ণা-৫ জাতের ধান লাগিয়েছেন। তেমন পোকা লাগেনি। ফলন হবে বিঘা প্রতি ১৯/২০ মণ। কিন্তু মেয়েদের মজুরি কম কেন, এপ্রশ্নের কোন উত্তর তিনি দিতে পারেননি।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

মহাদেবপুরে আদিবাসী নারী শ্রমিকদের বেতন বৈষম্য

আপডেট সময় : ০২:২৩:২৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ নভেম্বর ২০২১

কাজী সামছুজ্জোহা মিলন, মহাদেবপুর (নওগাঁ) প্রতিনিধিঃ
উত্তরাঞ্চলের শস্যভান্ডার খ্যাত নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলায় এখন রোপা আমন ধান কাটার ভরা মৌসুম। কাস্তের কচাকচ শব্দে মুখর মাঠের পর মাঠ। কোথাও ধান কাটছেন জমির মালিক, বাপ বেটা, নাতি পুতি, স্বামী স্ত্রী। কোথাও স্থানীয় কৃষি শ্রমিক। আবার কোথাও চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে আসা মৌসুমী শ্রমিকের দল।
সমতলের অবহেলিত আদিবাসী সাওতাল সম্প্রদায়ের মেয়েরা আদি থেকেই কৃষি কাজ করে আসছেন। হররোজ হাটুঅব্দি শাড়ি পড়ে দলবেঁধে খেতের আইল বেয়ে হেঁটে চলা, পুরুষ শ্রমিকদের সাথে ধান কাটা, আঁটি বাঁধা, মাথায় করে বোঝা বওয়া, মাড়াই করা সব কাজই করেন তারা। একজন পুরুষের সমান তো বটেই, অনেক ক্ষেত্রে পুরুষের চেয়ে তাড়াতাড়ি বেশি কাজ করেন। কিন্তু আদি থেকেই মজুরি বঞ্চনার শিকার হয়েছেন কৃষিতে অবদান রাখা এই নারী শ্রমিকেরা।
চোখের সামনেই একই সমান কাজ করেও বেশি টাকা নিয়ে যাচ্ছেন পুরুষেরা। এটা দেখেও কোন প্রতিবাদ করতে পারেননা তারা।
ইদানিং অনেক এনজিও কাজ করছেন আদিবাসীদের উন্নয়নে। কিন্তু তাদের এ বৈষম্যের অবসানে এগিয়ে আসেনি কেউ।
বুধবার (১৭ নভেম্বর) বিকেলে উপজেলার খাজুর ইউনিয়নের দেবীপুর গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, মহাদেবপুর-সরাইগাছী পাকা সড়কের পাশেই খেতে ধান কাটায় ব্যস্ত একদল নারী-পুরুষ। কাছে যেতেই বেশভূষায় চেনা গেল আদিবাসী সাওতাল নারীদের।
জানতে চাইলে একে একে তারা তাদের নাম বললেন তিলতি কর্মকার, গিতা, মিনতি, রামন্তি ও লাকি। দেবীপুর গ্রামেই বাড়ি তাদের। সকাল থেকেই ধান কাটার কাজ করছেন তারা। সারাদিনের কাজের জন্য প্রত্যেকে মজুরি পান রোজ তিনশথ টাকা। তাদের সাথে কাজ করছিলেন কয়েকজন পুরুষ শ্রমিক। রেজাউল, শরিফুল, মোস্তফা, সাগর ও হাসান।
আদিবাসী নারীদের হাত তাদের চেয়ে জোরে চলে, জানালেন রেজাউল।
কিন্তু তারা একই সময় কাজ করে মজুরি পান রোজ চারশথ টাকা। কেন? মেয়ে মানুষ, তাই।
শ্রমিকদের সাথে নিজেও ধান কাটছিলেন জমির মালিক ওই গ্রামের আল মামুন। জানালেন, তিন বিঘা জমিতে স্বর্ণা-৫ জাতের ধান লাগিয়েছেন। তেমন পোকা লাগেনি। ফলন হবে বিঘা প্রতি ১৯/২০ মণ। কিন্তু মেয়েদের মজুরি কম কেন, এপ্রশ্নের কোন উত্তর তিনি দিতে পারেননি।