ঢাকা ০১:৫০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::

নাটোরে বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষ; রাবার বুলেট নিক্ষেপ;পুলিশ ও সাংবাদিক সহ আহত ২০!

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১০:৪৫:২৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ নভেম্বর ২০২১ ২০২ বার পড়া হয়েছে
আজকের জার্নাল অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নাটোর প্রতিনিধিঃ
নাটোরে বিএনপির গণঅনশন কর্মসুচিতে বিএনপি নেতাকর্মিদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে।
এসময় পুলিশ ও সাংবাদিক সহ ২০জন আহত হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশ কয়েক রাউন্ড টিয়ারসেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। সোমবার সকালে শহরের আলাইপুর এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা সহ তিন বিএনপি কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ।
পুলিশ ও বিএনপির দলীয় সুত্রে জানাযায়, বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি সহ বিদেশে চিকিৎসার দাবিতে কেন্দ্রিয় কর্মসুচীর অংশ হিসেবে সোমবার সকালে নাটোর শহরের আলাইপুরস্থ বিএনপির দলীয় কাযার্লয়ের সামনে দলের নেতা কর্মীরা বিএনপির কেন্দ্রিয় নেতা রুহুল কুদ্দুস দুলুর পত্নি সাবিনা ইয়াসমিন ছবির নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি কিছুদুর যাওয়ার পরই পুলিশ বাধা দেয়। এ সময় দলের নেতা কর্মিদের শান্তিপূর্ন ভাবে কর্মসুচি পালন করতে বললে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে পুলিশের ওপর চড়াও হয়। পুলিশ লাঠি চার্জ করলে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। এসময় বিএনপির কেন্দ্রিয় নেতা রুহুল কুদ্দুস দুলুর পত্নি সাবিনা ইয়াসমিন সহ বিএনপির বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হন। পরে বিএনপির নেতা -কর্মীরা বিক্ষিপ্তভাবে পুলিশকে লক্ষ করে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন আনতে পুলিশ কয়েক রাউন্ড টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে। এসময় নাটোর সদর থানার ওসি মুনছুর রহমান ও সাংবাািদকসহ বিএনপির ২০ নেতা কর্মী আহত হয়েছেন। এসময় দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে ৪ গণমাধ্যম কর্মী শহিদুল হক সরকার, কামরুল ইসলাম, শরিফুর ইসলাম শরিফ, বোরহান উদ্দিন বনি আহত হন।
বিএনপির নেতা সাবিনা ইয়াসমিন ছবি অভিযোগ করেছেন, শান্তিপূর্ণ সমাবেশে শুরুর আগেই তাদের নিরীহ নেতাকর্মীদের উপর পুলিশ নির্বিচারে লাঠিচার্জ, গুলিবর্ষণ ও কাঁদানো গ্যাস ছুঁড়ে। এ ঘটনায় তিনিসহ ৩০ জনের বেশি নেতাকর্মীকে আহত করা হয়েছে।
এদিকে বিএনপির কেন্দ্রিয় সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু সাংবাদিকদের মোবাইল ফোনে জানান, বিএনপির শান্তিপুর্ন কর্মসুচীতে হামলা চালানো হয়েছে। এই হামলায় তার স্ত্রী সাবিনা ইয়াছমিন ছবি, জেলা বিএনপির সদস্য সচিব রহিম নেওয়াজ, ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাজ্জাদ হোসেন সোহাগ, উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আবুল হোসেন, ছাত্রদল নেতা কামরুল ইসলাম, বনপাড়া পৌর কাউন্সিলর বেলাল হোসেন, বিএনপি নেতা আব্দুল আজিজ সহ অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছে। এছাড়া জেলা ছাত্রদলের সাধারন সম্পাদক মারুফ ইসলাম সৃজন গুলিবিদ্ধ হয়েছে। দুলু বলেন, বিএনপি সরকার পতনের কোন আন্দোলন করছেনা। দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে সুচিকিৎসার দাবীতে শান্তিপুর্ন কর্মসুচীতে বিনা উস্কানীতে যে হামলা চালানো হয়েছে তার জন্য তিনি তিব্র ন্দিা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, তার সরকারের আমলে শান্তি ভঙ্গ হয় এমন কোন কাজ হতে দেওয়া হয়নি। অথচ শান্তিপুর্ন পরিবেশকে আতংকিত করতেই এই হামলা চালানো হয়েছে। এই অশান্ত ও আতংকিত পরিবেশ সৃষ্টির সাথে যারা জড়িত তদন্তের মাধ্যমে তাদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানান তিনি।
নাটোরের পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা বলেন, শান্তিপুর্ন কর্মসুচী পালনের জন্য তাদের বলা হয়। কিন্তু তারা পুেেিেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেশের শান্তিপুর্ন অবস্থান লক্ষ করে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে অশান্ত অবস্থার সৃষ্টি করে। এসময় পুলিশ আবারও শানিতপুর্নভাবে কর্মসুচী পালনের কথা বলতে গেলে তাদের উদ্দেশ্যে ইট নিক্ষেপ করা হয়। তবে পুলিশ কোন লাঠিচার্জ করেনি। ধাওয়া করেছে মাত্র। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে ১৫ রাউন্ড টিয়ার শেল নিক্ষেপ করা হয়েছে। এঘটনায় তিনজনকে আটক করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

নাটোরে বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষ; রাবার বুলেট নিক্ষেপ;পুলিশ ও সাংবাদিক সহ আহত ২০!

আপডেট সময় : ১০:৪৫:২৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ নভেম্বর ২০২১

নাটোর প্রতিনিধিঃ
নাটোরে বিএনপির গণঅনশন কর্মসুচিতে বিএনপি নেতাকর্মিদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে।
এসময় পুলিশ ও সাংবাদিক সহ ২০জন আহত হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশ কয়েক রাউন্ড টিয়ারসেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। সোমবার সকালে শহরের আলাইপুর এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা সহ তিন বিএনপি কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ।
পুলিশ ও বিএনপির দলীয় সুত্রে জানাযায়, বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি সহ বিদেশে চিকিৎসার দাবিতে কেন্দ্রিয় কর্মসুচীর অংশ হিসেবে সোমবার সকালে নাটোর শহরের আলাইপুরস্থ বিএনপির দলীয় কাযার্লয়ের সামনে দলের নেতা কর্মীরা বিএনপির কেন্দ্রিয় নেতা রুহুল কুদ্দুস দুলুর পত্নি সাবিনা ইয়াসমিন ছবির নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি কিছুদুর যাওয়ার পরই পুলিশ বাধা দেয়। এ সময় দলের নেতা কর্মিদের শান্তিপূর্ন ভাবে কর্মসুচি পালন করতে বললে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে পুলিশের ওপর চড়াও হয়। পুলিশ লাঠি চার্জ করলে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। এসময় বিএনপির কেন্দ্রিয় নেতা রুহুল কুদ্দুস দুলুর পত্নি সাবিনা ইয়াসমিন সহ বিএনপির বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হন। পরে বিএনপির নেতা -কর্মীরা বিক্ষিপ্তভাবে পুলিশকে লক্ষ করে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন আনতে পুলিশ কয়েক রাউন্ড টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে। এসময় নাটোর সদর থানার ওসি মুনছুর রহমান ও সাংবাািদকসহ বিএনপির ২০ নেতা কর্মী আহত হয়েছেন। এসময় দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে ৪ গণমাধ্যম কর্মী শহিদুল হক সরকার, কামরুল ইসলাম, শরিফুর ইসলাম শরিফ, বোরহান উদ্দিন বনি আহত হন।
বিএনপির নেতা সাবিনা ইয়াসমিন ছবি অভিযোগ করেছেন, শান্তিপূর্ণ সমাবেশে শুরুর আগেই তাদের নিরীহ নেতাকর্মীদের উপর পুলিশ নির্বিচারে লাঠিচার্জ, গুলিবর্ষণ ও কাঁদানো গ্যাস ছুঁড়ে। এ ঘটনায় তিনিসহ ৩০ জনের বেশি নেতাকর্মীকে আহত করা হয়েছে।
এদিকে বিএনপির কেন্দ্রিয় সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু সাংবাদিকদের মোবাইল ফোনে জানান, বিএনপির শান্তিপুর্ন কর্মসুচীতে হামলা চালানো হয়েছে। এই হামলায় তার স্ত্রী সাবিনা ইয়াছমিন ছবি, জেলা বিএনপির সদস্য সচিব রহিম নেওয়াজ, ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাজ্জাদ হোসেন সোহাগ, উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আবুল হোসেন, ছাত্রদল নেতা কামরুল ইসলাম, বনপাড়া পৌর কাউন্সিলর বেলাল হোসেন, বিএনপি নেতা আব্দুল আজিজ সহ অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছে। এছাড়া জেলা ছাত্রদলের সাধারন সম্পাদক মারুফ ইসলাম সৃজন গুলিবিদ্ধ হয়েছে। দুলু বলেন, বিএনপি সরকার পতনের কোন আন্দোলন করছেনা। দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে সুচিকিৎসার দাবীতে শান্তিপুর্ন কর্মসুচীতে বিনা উস্কানীতে যে হামলা চালানো হয়েছে তার জন্য তিনি তিব্র ন্দিা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, তার সরকারের আমলে শান্তি ভঙ্গ হয় এমন কোন কাজ হতে দেওয়া হয়নি। অথচ শান্তিপুর্ন পরিবেশকে আতংকিত করতেই এই হামলা চালানো হয়েছে। এই অশান্ত ও আতংকিত পরিবেশ সৃষ্টির সাথে যারা জড়িত তদন্তের মাধ্যমে তাদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানান তিনি।
নাটোরের পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা বলেন, শান্তিপুর্ন কর্মসুচী পালনের জন্য তাদের বলা হয়। কিন্তু তারা পুেেিেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেেশের শান্তিপুর্ন অবস্থান লক্ষ করে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে অশান্ত অবস্থার সৃষ্টি করে। এসময় পুলিশ আবারও শানিতপুর্নভাবে কর্মসুচী পালনের কথা বলতে গেলে তাদের উদ্দেশ্যে ইট নিক্ষেপ করা হয়। তবে পুলিশ কোন লাঠিচার্জ করেনি। ধাওয়া করেছে মাত্র। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে ১৫ রাউন্ড টিয়ার শেল নিক্ষেপ করা হয়েছে। এঘটনায় তিনজনকে আটক করা হয়েছে বলে তিনি জানান।